বাংলাদেশ সফরে নিরাপত্তা সতর্কতা তুলে নেবে জাপান

মাহমুদ হাসান খান রোমেলঃ গুলশানের হলি আর্টিসান ঘটনার পর বাংলাদেশ ভ্রমণ এবং বিভিন্ন প্রকল্পে অবস্থানরত জাপানিদের নিরাপত্তার বিষয়ে দেশটির দেয়া সতর্কতা শিগগিরই তুলে নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মহিত।

রোববার সচিবালয়ে সদ্য জাপান সফর নিয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন। এ সময় ইআরডি সচিবসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের প্রতি সব ধরনের শঙ্কা কেটে গেছে জাপান সরকারের। তারা বাংলাদেশে জাপানি নাগরিকদের প্রতি যে উপদেশ দিয়েছিল তা তুলে নেয়া হবে দেশটির অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন। একই সঙ্গে বাংলাদেশে জাইকাসহ জাপানের সব ধরনের বিনিয়োগ অব্যাহত থাকবে।

মুহিত বলেন, ‘জাইকার প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। ওই দিনই জাপানের অর্থমন্ত্রী তারো আসো’র সঙ্গে বৈঠক হয়। তিনি বললেন, আলোচনার কোন বিষয় নেই। কেননা সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ওই অ্যাডভাইজারি বাতিল। বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্কের ক্ষেত্রে কোন ধরনের রিজার্ভেশন আর নেই। এখন এটা ইফেকটিভ হতে যা সময় লাগবে।’

তিনি বলেন, ‘সো দিস ওয়াজ এ ভেরিগুড ইনফরমেশন, ভেরি গুড থিংকস অব আমাদের দেশের জন্য। জাপানের যে রেস্ট্রিকশন বাংলাদেশের জন্য ছিল ইন ডুইং বিজনেস, দ্যাট হ্যাজ বিন উইথড্র।`

তিনি আরো বলেন, ‘জাপানের ব্যবসায়ীরা তো অনেক আগে থেকেই বাংলাদেশে আসা-যাওয়া করতেন। মাঝখানে কিছুটা ছেদ পড়েছিল। এখন সেটা স্বাভাবিক। ব্যবসায়ীদের মতো সরকারি পর্যায়েও অচিরেই আসা-যাওয়া শুরু হবে।’

জাপানের নিষেধাজ্ঞা কেমন ছিল-সাংবাদিকদের এ প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, এক্ষেত্রে লিখিত কোনও স্টেটমেন্ট ছিল না। তবে দেশটির নাগরিকদের সতর্কতার সঙ্গে চলাফেরা করতে নির্দেশ দেয়া হয়েছিল।

দৃঢ়তার সঙ্গে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘ওই ঘটনার পর বাংলাদেশে জাপানি কোনও প্রকল্পের কাজ আটকে ছিল না। আমার চেয়েছি বাংলাদেশে বিনিয়োগের মার্কেটটি বড় করতে। বিনিয়োগের ক্ষেত্রে জাপানের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে বিনিয়োগ বাড়ানোর লক্ষ্য এখন সহজ হবে।’

তিনি আরও বলেন, বিনিয়োগ বাড়ানোর জন্য দক্ষ শ্রমিককের প্রয়োজন রয়েছে। কিন্তু আমাদের দেশে দক্ষ শ্রমিক অভাব রয়েছে।

রিজার্ভ চুরির ব্যাপারে সিআইডি তদন্ত নিয়ে প্রশ্ন করা হলে মন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির বিষয়ে সিআইডির প্রতিবেদন আমি দেখি নাই। কাজেই ও বিষয়ে আমি কোনও মন্তব্য করতে পারবো না।’